Advertisement

কিন্ডারগার্টেন গুলো অস্তিত্ব সংকটের মুখে -সরকারের সুদৃষ্টির অভাব।

Brahmanbariabarta

এই আর্টিকেল টি ৩০১।

মুন্সি সাব্বির আহাম্মদ:  মহামারী করোনার কারণে এক বছরের বেশি সময় ধরে বন্ধ রয়েছে প্রাথমিক শিক্ষায় গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী এদেশের সকল কিন্ডারগার্টেন । ছাত্র সংকট , ভবন ভাড়া , শিক্ষক কর্মচারীর বেতন সহ নানামুখী সমস্যায় জর্জরিত কিন্ডারগার্টেনগুলো।  অধিক জনসংখ্যার এই দেশে যেখানে সরকার শিক্ষার্থী অনুপাতে প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করতে ব্যর্থ, প্রাইমারী বিদ্যালয় গুলো অধিক ছাত্রসংখ্যার কারণে শ্রেণি কার্যক্রম পরিচালনা করতে হিমশিম খাচ্ছে।   সেখানে বেসরকারী উদ্যোগে গড়ে উঠা কিন্ডারগার্টেনগুলো প্রাথমিক শিক্ষা ক্ষেত্রে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।   সরকারী কোষাগার থেকে প্রাইমারী শিক্ষকদের  হাজার হাজার কোটি টাকা মাসিক বেতন ও নানা ধরনের প্রশিক্ষণ দিয়েও যেখানে শিক্ষার মান উন্নয়ণ  ও সমাপনী পরীক্ষায় ভাল ফলাফল করতে প্রায় ব্যর্থ , সেখানেও অল্প পুজিঁ নিয়ে গড়ে উঠা এদেশের কিন্ডারগার্টেনগুলো শিক্ষার মান উন্নয়ণ ও সমাপনী পরীক্ষায় প্রায় শতকরা ৮০ ভাগ এর ও বেশি জি. পি. এ ৫ পাচ্ছে এই প্রতিষ্ঠান গুলোর শিক্ষার্থীরা । শুধু ভাল ফলাফল নয় সহ শিক্ষার দিক দিয়েও কিন্ডারগার্টেনগুলোর  শিক্ষার্থীরা অনেক এগিয়ে রয়েছে। এই খাতের উদ্যোক্তারা নিজস্ব তত্বাবধানে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিয়ে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার মান বৃদ্ধির চেষ্টা করে।  প্রতিযোগিতার এই যুগে দেখা যায় মানসম্পন্ন  মাধ্যমিক,  উচ্চমাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষার প্রতিষ্ঠানে সুযোগ পাওয়া শিক্ষার্থীর সিংহভাগই কিন্ডারগার্টেন পড়োয়া শিক্ষার্থী । একটি আদর্শ জাতি গঠনে শিক্ষিত নাগরিকের বিকল্প নেই । এই দেশ যেখানে অনুন্নত একটি দেশ থেকে সদ্য উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জন করেছে , সেখানে শিক্ষার প্রথম ধাপ প্রাথমিক পর্যায়ে গুরত্বর্ণ ভূমিকা পালনকারী বেসরকারী কিন্ডারগার্টেন গুলোর বর্তমান দুরাবস্থায় সরকারের কোন দৃষ্টি নেই। প্রতিটি ইউনিয়নে যে কয়টি প্রাইমারী বিদ্যালয় আছে তাদের একমাসের বেতন যদি সরকারী ভাবে অনুদান হিসাবে ঐ ইউনিয়নের কিন্ডারগার্টেনগুলোকে দেওয়া হয় তাহলে কম করে হলেও প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে ২ (দুই) লক্ষ টাকা করে দেওয়া যাবে। অন্যদিকে দেশের ক্ষুদ্র ঋণ প্রতিষ্ঠানগুলো কোন দলিল বা জায়গাজমি ছাড়া মাত্র একজন জামানতকারীর স্বাক্ষরের বিপরীতে ৫ (পাঁচ লক্ষ) টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করছে , সেখানে ব্যাংকগুলোর কাছে গেলে জায়গা ,জমি , বাড়ি, গাড়ি ইত্যাদির ইতিহাস রচনা করে । যাহা প্রায় কিন্ডারগার্টেন মালিকপক্ষের কাছে অসম্ভব । এখানে সরকার সকল ব্যাংক গুলোকে সহজ শর্তে জায়গা জমি না চেয়ে প্রয়োজনে একজন জামানাতকারীর বিপরীতে পাচঁজন জামানত কারীর স্বাক্ষর রেখে প্রতিটি কিন্ডারগার্টেনকে ১ – ২০ লক্ষ টাকা  পর্যন্ত ঋণ প্রদান করার নির্দেশ দিতে পারে। তাহলে হয়তো বেচেঁ যাবে দেশের লক্ষাধিক কিন্ডারগার্টেন ও লক্ষ লক্ষ শিক্ষকের স্বপ্ন ও জীবন । ইতিমেধ্যই বন্ধ হয়ে গেছে দেশের হাজার হাজার কিন্ডাগার্টেন। যে সকল প্রতিষ্ঠান এখনো টিকে আছে তাদেরও হাল ছেড়ে দেওয়ার উপক্রম হয়েছে। বহু স্বপ্ন নিয়ে গড়ে তোলা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেশ কয়েকজন আত্মহত্যার পথও বেছে নেয়েছে। লক্ষ লক্ষ শিক্ষক মানবেতর জীবনযাপন করছে।স্বল্প পরিসরে স্কুল গুলো খুলে দেওয়ারও সিদ্ধান্ত নিতে হবে। তা না হলে আর অল্প সময়ের মধ্যেই বন্ধ হয়ে যাবে প্রাথমিক শিক্ষায় গুরত্বপূর্ণ ভূমিকাপালনকারী প্রায় সকল কিন্ডারগার্টেন স্কুল । এই খাতকে বাচাঁনোর জন্য সরকারের অচিরেই সুদৃষ্টি প্রদান করা ও প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণ করা উচিত।

জীবন চলার পথে প্রায়ই আমাদের সামনে ঘটে যায় বিভিন্ন ধরণের অনাকাংক্ষিত ঘটনা, আমরা চাইলে প্রযুক্তির কল্যানে খুব সহজেই ঘটনাগুলোকে ক্যামেরা বন্দি বা ভিডিও রেকর্ড করে ফেলতে পারি এবং খুব দ্রুত অন্যদের কাছে সেই ঘটনার খবর ছড়িয়ে দিতে পারি।

ভাইরাল২৪.কম এমন একটি ওপেন নিইজ প্ল্যাটফর্ম, যেখানে আপনি নিজেই কোন খবর বা ভিডিও পোস্ট করতে পারেন, আপনার সেই খবর বা ভিডিওটি হাজার হাজার মানুষ দেখবে, আপনার মাধ্যমে সবাই সেই ঘটনা সম্পর্কে জানতে পারবে।

আমাদেরকে লেখা বা ভিডিও পাঠাতে "আপনিও হোন ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক" পেইজ থেকে নিয়ম-কানুনগুলো ভালভাবে জেনে নিন।

Advertisement

Sorry, no post hare.